বেস্টফ্রেন্ডের ছোট বোন by সামির আহমেদ রোহান পর্বঃ ০৭

বেস্টফ্রেন্ডের ছোট বোন

সামির আহমেদ রোহান

পর্বঃ ০৭

 

মামিঃ তোমার মামা আসলে কিন্তু বিচার দিব

আমিঃ আচ্ছা আসতেছি

আমি মামাকে অনেক বেশি হয় পাউ যতটা না আব্বুকে পাই

মামা আমাকে শুধু ১ দিন মারছে তাও এতো ভয় পাই তার আগে থেকেই

তারপর যেয়ে খেয়ে আসলাম

খাবার খেয়ে এসে একটা ঘুম দিলাম তারপর সন্ধ্যায় উঠে একটু বাহিরে হাটতে বের হলাম

হেটে এসে খুশি কে মেছেজ দিলাম

আমিঃ কুত্তি কই রে

খুশিঃ 🙋‍♂️🙋‍♂️🙋‍♂️আছি

আমিঃ বাহ বাহ মেছেজ দেওয়ার সাথে সাথে রিপ্লাই

খুশিঃ হুম

আমিঃ কি করিস

খুশিঃ শুয়ে আছি।তুই?

আমিঃ এই সন্ধ্যা বেলা কি শুয়ে থাকে উঠ পড়তে বস

খুশিঃ এহ আসছে জ্ঞান দিতে পড়তে বসবো না কি করবি

আমিঃ এখানে একটা ভালো কোচিং আছে অইটাতে ভর্তি হয়ে যাব,,,,,। শুধু এক্সাম এর সময় এক্সাম দিয়ে আসবো

খুশিঃ এ কুত্তা মেরে ফেলবো,,,,,। তুই আয় তারপর বুঝবি

আমিঃ আসবো ই না

খুশিঃ 🥺🥺🥺

আমিঃ হুম যা পড়তে বস

খুশিঃ যাচ্ছি বাল

আমিঃ শোন

খুশিঃ কি

আমিঃ আজ কি কি পড়াইছে নোট গুলা দে

খুশিঃ কেন সাঈদ দেয় নাই?

আমিঃ এখন ও তো দেয় নাই

খুশিঃ আচ্ছা দিতেছি ওয়েট

আমিঃ আচ্ছা

তারপর খুশি আমাকে নোট দিয়ে অফলাইন হয়ে গেল

আর খুশির বাসায়

তানিয়া খুশি কাছে এসে বললো

তানিয়াঃ আপু

খুশিঃ,,,,,,,,,,,,,,,।

তানিয়াঃ আপু এই প্রশ্নটার মধ্যে একটু প্রবলেম হচ্ছে একটু দেখিয়ে দিবা

খুশিঃ আমি পারি না (প্রশ্ন না দেখে অন্য দিকে তাকিয়ে)

তারপর  তানিয়া মন খারাপ করে চলে গেল

এভাবে দিন চলতে ছিল

আর খুশিও তানিয়ার সাথে কথা বলতো না এর পর এ তানিয়া নানান বাহানা নিয়ে খুশির সাথে কথা বলার চেষ্টা করছে কিন্তু খুশি তো কথা বলে না

আসলো যখন তানিয়া বলছে বোন মনে করতে সন্দেহ হয়

এই কথাটা শুনে ই খুশির বেশি কষ্ট পাইছে

খুশি তানিয়াকে অনেক বেশি ভালোবাসে তাই একটু কথাতেই বেশি কষ্ট পাইছে

নানুর বাসায় কয়েক দিন থাকার পর যখন বাসায় আসবো তখন আমার এক কাজিন কল দিল

মাহিম(আমার কাজিন)ঃ কিরে কি অবস্থা

আমিঃ এই তো আছি আলহামদুলিল্লাহ তোর কি অবস্থা

মাহিমঃ ভালোই,,,,। কি করস

আমিঃ এই তো নানুর বাসায় আসছি,,,,। কাল বাড়ি চলে যাব তাই বেগ গুছাইতেছি

মাহিমঃ এক কাজ কর,,,,,।

আমিঃ কি কাজ?

মাহিমঃ আমাদের বাসায় এসে থেকে যা কয়েক দিন

আমিঃ আম্মু

মাহিমঃ আরে এসে পরলে তো আর কিছু বলতে পারবো

আমিঃ কিন্তু আমি তো চিনি না

মাহিমঃ তুই আমাদের এখানের বাস স্টান্ডে এসে দাড়াবি আমি এসে নিয়ে যাব

আমিঃ আচ্ছা কাল আমি যাওয়ার আগে কল দিব

মাহিমঃ আচ্ছা

আমিঃ হুম,,,,। মিহা,কাকি  কেমন আছে (মিহা ওর ছোট বোন)

মাহিমঃ আচ্ছা এখন একটু রাখি রে,,,, বাহিরে যাব একটু

আমিঃ আচ্ছা কাল কল দিব

মাহিমঃ ওকে

তারপর মাহিম কল কেটে দিল

যাহ বলে তো দিলাম কাল যাব আম্মু কে না হয় বুঝালাম খুশি কে কে বুঝাবে

আমিঃ দোস্ত

খুশিঃ কি

আমিঃ কেমন আছিস

খুশিঃ আলহামদুলিল্লাহ ভালো,,,,। তুই,,,?

আমিঃ ভালো,,,,।খাইছিস?

খুশিঃ হুম খাইছি,,,,।তুই?

আমিঃ হুম

খুশিঃ এখন বলে ফেল কি বলবি

আমিঃ দোস্ত বাসায় যেতে আরো কিছু দিন লাগবে রে

খুশিঃ কেন কি হইছে কোন সমস্যা???।

আমিঃ না তেমন কিছু না,,,,।

খুশিঃ তাহলে

আমিঃ এই একটু কাজিনদের বাসায় যাব ও অনেক করে বলছে

খুশিঃ হুম ভালো যা😒

আমিঃ রাগ করিস কেন ওদের বাসায় ৮ বছর হলো যাই না

খুশিঃ অহ যা সমস্যা নাই

আমিঃ হুম রাগ করিস না প্লিজ বেশি দিন থাকবো ন তো

খুশিঃ আচ্ছা রাগ করবো না

আমিঃ ওকে 😊 😊 😊 😊 😊

তারপর আমি বেগ গুছিয়ে শুয়ে পরলাম

কিছুক্ষন পরে মামি খেতে ডাকলো

যেয়ে খেয়ে রুমে এসে ঘুমিয়ে পরলাম।

সকালে ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে রুমে বসে আছি এমন সময় সাইদা আসলো

সাইদাঃ ভাইয়া আজ চলে যাবা

আমিঃ হুম ভাইয়া আজ চলে যাবো,,,,,,। তুমি যাবা ভাইয়ার সাথে

সাইদাঃ আম্মু গেলে আমিও যাব

আমিঃ আচ্ছা কিছু দিন পর তোমার আম্মুকে বলো নিয়ে যেতে তাহলে নিয়ে যাবে

সাইদাঃ আচ্ছা

আমিঃ হুম

সাইদাঃ ভাইয়া আবার কবে আসবা,,,,,,??

আমিঃ কিছু দিন পর ই আবার আসবো ভাইয়া 😊,,,,। আসো ভাইয়া সাথে আবার কিছু দিন থেকে চলে এসো

সাইদাঃ না আম্মু গেলে যাব না হলে যাব না

আমিঃ আচ্ছা যেও

তারপর সাইদা চলে গেল

তারপর মাহিম কে কল দিলাম

আমিঃ হ্যালো

মাহিমঃ কিরে আসছিস নাকি

আমিঃ না বের হব

মাহিমঃ আচ্ছা তুই আমাকে যখন পাখির মোর বলবে তখন কল দিস

আমিঃ আচ্ছা

তারপর আমি নানু আর মামির কাছে বলে দোয়া আর অনেক গুলা জ্ঞান নিয়ে বের হলাম।

মামি অনেক করে বলতেছিল আরো কয়েক দিন থাকতে।

কিন্তু আমি ইচ্ছা করেই থাকি নাই। এখানে একা একা লাগে। তাই আমি চলে যাচ্ছি। তারপর বের হলাম মাহিমদের উদ্দেশ্যে। তারপর যখন পাখিরমোর আসলাম মাহিম কে কল দিয়ে বলে দিলাম। তারপর মাহিম আমাকে এসে নিয়ে গেলো। মাহিমদের বাসার নিচে নামতেই। কিভাবে যেন বারান্দা দিয়ে মিহা দেখে ফেলছে। গাড়ি ভাড়া দিতে দিতে নিচে নেমে আসছে।

মিহাঃ সামির ভাইয়া,,,,,,,,,(বলে আমার কাছে চলে আসে)

তারপর মিহা আমাকে টানতে টানতে উপরে নিয়ে যায়। তারপর আমি কাকি র কাছে গেলাম

আমিঃ আসসালামু আলাইকুম,,,,। কাকি কেমন আছেন?

কাকিঃ আলহামদুলিল্লাহ ভালো,,,, তুই কেমন আছিস,,তোর আব্বু আম্মু কেমন আছে,,,,?

আমিঃ আলহামদুলিল্লাহ সবাই ভালো আছে

তারপর আমি আরো কিছু কথা বলে। মাহিমের রুমে গেলাম তারপর মাহিম wifi connect করে দিলো।

(আধুনিক যোগ ভাই নেট ছাড়া কোথাও থাকা যায় না)। তারপর আমি মিহা, মাহিম,মিহার খাতো বোন সবাই মিলে আড্ডা দিতে লাগলাম

(মিহা আর মিহার খালাতো বোন কিন্তু ছোট কেউ আবার অন্য কোন মাইন্ডে নিয়েন না)

মাহিমঃ সামির

আমিঃ কি?

মাহিমঃ আয়

আমিঃ কই যাবি?

মাহিমঃ আয় নাইমের দোকানে যাই

আমিঃ কেন?

মাহিমঃ আয় কাজ আছে

তারপর আমি আর মাহিম ওর বন্ধু নাইমের দোকানে গেলাম। সেখানে আমরা কিছুক্ষন আড্ডা দিলাম।

আসলে নাইম ভাই রে আমি আগে থেকে চিনি মাহিম কয়েকবার দাদু দের বাসায় নিয়ে গেছিলো তখন দেখছি। আবার fb তো আছেই

আমিঃ আচ্ছা এখানে বসে থেকে লাভ কি

মাহিমঃ বিকালে তিশা আসবো

আমিঃ তাহলে বিকালে আসতাম এখন এই দুপুরে কেন??

মাহিমঃ আজকে ওরে ওর জন্মদিনের গিফট দিব

আমিঃ আজ তিশার জন্মদিন?

মাহিমঃ না অই দিন টিকটকে পোস্ট করলাম তুই ভাবছিলি যে আমার জন্মদিন অই দিন ছিল

আমিঃ তাহলে গিফট আজ কেন

মাহিমঃ আরে অই দিন টাকা ছিল না,,,,। আবার ভাব ছিলাম সারপ্রাইজ দিব

আমিঃ বাহ বস বাহ কি প্রেম

মাহিমঃ হুম 😎😎

আমিঃ আজ সিংগেল হলে এগুলা দেখা লাগতেছে

মাহিমঃ তুই একটা রিলেশন করলেই তো পারিস

তখন ই তানিয়ার কথা মনে পরে গেল

আর মন টা একটু খারাপ হলো বেশি না কিন্তু একটু

আমিঃ রাতে বলবো একটা কথা মনে করিয়ে দিস

মাহিমঃ আচ্ছা

আমিঃ তাহলে কি যাবি না গিফট কিনতে

মাহিমঃ হুম

তারপর আমি মাহিম আর নাইম এই ৩ জন মিলে গিফট কিনতে গেলাম

 

Waiting for next part………..

 

সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন 🥰🥰

নামাজ পড়বেন 🤲🤲

আসসালামু আলাইকুম 🥰🥰

আল্লাহ হাফেজ 🤝🤝

Leave a Reply

Your email address will not be published.